THE HIMALAYAN TALK: INDIAN GOVERNMENT FOOD SECURITY PROGRAM RISKIER

http://youtu.be/NrcmNEjaN8c The government of India has announced food security program ahead of elections in 2014. We discussed the issue with Palash Biswas in Kolkata today. http://youtu.be/NrcmNEjaN8c Ahead of Elections, India's Cabinet Approves Food Security Program ______________________________________________________ By JIM YARDLEY http://india.blogs.nytimes.com/2013/07/04/indias-cabinet-passes-food-security-law/

THE HIMALAYAN TALK: PALASH BISWAS CRITICAL OF BAMCEF LEADERSHIP

[Palash Biswas, one of the BAMCEF leaders and editors for Indian Express spoke to us from Kolkata today and criticized BAMCEF leadership in New Delhi, which according to him, is messing up with Nepalese indigenous peoples also. He also flayed MP Jay Narayan Prasad Nishad, who recently offered a Puja in his New Delhi home for Narendra Modi's victory in 2014.]

THE HIMALAYAN DISASTER: TRANSNATIONAL DISASTER MANAGEMENT MECHANISM A MUST

We talked with Palash Biswas, an editor for Indian Express in Kolkata today also. He urged that there must a transnational disaster management mechanism to avert such scale disaster in the Himalayas. http://youtu.be/7IzWUpRECJM

THE HIMALAYAN TALK: PALASH BISWAS LASHES OUT KATHMANDU INT'L 'MULVASI' CONFERENCE

अहिले भर्खर कोलकता भारतमा हामीले पलाश विश्वाससंग काठमाडौँमा आज भै रहेको अन्तर्राष्ट्रिय मूलवासी सम्मेलनको बारेमा कुराकानी गर्यौ । उहाले भन्नु भयो सो सम्मेलन 'नेपालको आदिवासी जनजातिहरुको आन्दोलनलाई कम्जोर बनाउने षडयन्त्र हो।' http://youtu.be/j8GXlmSBbbk

THE HIMALAYAN TALK: PALASH BISWAS LASHES OUT KATHMANDU INT'L 'MULVASI' CONFERENCE

अहिले भर्खर कोलकता भारतमा हामीले पलाश विश्वाससंग काठमाडौँमा आज भै रहेको अन्तर्राष्ट्रिय मूलवासी सम्मेलनको बारेमा कुराकानी गर्यौ । उहाले भन्नु भयो सो सम्मेलन 'नेपालको आदिवासी जनजातिहरुको आन्दोलनलाई कम्जोर बनाउने षडयन्त्र हो।' http://youtu.be/j8GXlmSBbbk

THE HIMALAYAN TALK: PALASH BISWAS BLASTS INDIANS THAT CLAIM BUDDHA WAS BORN IN INDIA

THE HIMALAYAN VOICE: PALASH BISWAS DISCUSSES RAM MANDIR

Published on 10 Apr 2013 Palash Biswas spoke to us from Kolkota and shared his views on Visho Hindu Parashid's programme from tomorrow ( April 11, 2013) to build Ram Mandir in disputed Ayodhya. http://www.youtube.com/watch?v=77cZuBunAGk

THE HIMALAYAN TALK: PALSH BISWAS FLAYS SOUTH ASIAN GOVERNM

Palash Biswas, lashed out those 1% people in the government in New Delhi for failure of delivery and creating hosts of problems everywhere in South Asia. http://youtu.be/lD2_V7CB2Is

Palash Biswas on BAMCEF UNIFICATION!

THE HIMALAYAN TALK: PALASH BISWAS ON NEPALI SENTIMENT, GORKHALAND, KUMAON AND GARHWAL ETC.and BAMCEF UNIFICATION! Published on Mar 19, 2013 The Himalayan Voice Cambridge, Massachusetts United States of America

BAMCEF UNIFICATION CONFERENCE 7

Published on 10 Mar 2013 ALL INDIA BAMCEF UNIFICATION CONFERENCE HELD AT Dr.B. R. AMBEDKAR BHAVAN,DADAR,MUMBAI ON 2ND AND 3RD MARCH 2013. Mr.PALASH BISWAS (JOURNALIST -KOLKATA) DELIVERING HER SPEECH. http://www.youtube.com/watch?v=oLL-n6MrcoM http://youtu.be/oLL-n6MrcoM

Imminent Massive earthquake in the Himalayas

THE HIMALAYAN TALK: PALASH BISWAS CRITICIZES GOVT FOR WORLD`S BIGGEST BLACK OUT

THE HIMALAYAN TALK: PALASH BISWAS CRITICIZES GOVT FOR WORLD`S BIGGEST BLACK OUT

THE HIMALAYAN TALK: PALASH BISWAS TALKS AGAINST CASTEIST HEGEMONY IN SOUTH ASIA

Palash Biswas on Citizenship Amendment Act

Mr. PALASH BISWAS DELIVERING SPEECH AT BAMCEF PROGRAM AT NAGPUR ON 17 & 18 SEPTEMBER 2003 Sub:- CITIZENSHIP AMENDMENT ACT 2003 http://youtu.be/zGDfsLzxTXo

Welcome

Website counter
website hit counter
website hit counters

Tweet Please

Palash Biswas On Unique Identity No1.mpg

Sunday, October 11, 2015

https://youtu.be/_iuLfQn2MxA # Beef Gate!Let Me Speak Human!What is your Politics,Partner?Dare you to Stand for Humanity? বাংলা দৈনিক এই সময়ঃকলবার্গি থেকে ইকলাখঃ ডানপন্থী চোখরাঙানির বিরুদ্ধে সোচ্চার কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী! অসহিষ্্নুতার শেষ চাইছে দেশ,বাংলা নিরুত্তাপ! Indian Intelligentsia resist the governance of Fascism and the Hindutva Agenda.Welcome!Very Welcome! Three eminent writers from Punjab return Sahitya Akademi awards!Thanks Uday Prakash for his initiative! Bengal,Maharashtra and Karnataka chose silence as the conscience of Gujarat is quite aloud! Palash Biswas

https://youtu.be/_iuLfQn2MxA

# Beef Gate!Let Me Speak Human!What is your Politics,Partner?Dare you to Stand for Humanity?

বাংলা দৈনিক এই সময়ঃকলবার্গি থেকে ইকলাখঃ ডানপন্থী চোখরাঙানির বিরুদ্ধে সোচ্চার কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী!

অসহিষ্্নুতার শেষ চাইছে দেশ,বাংলা নিরুত্তাপ!


Indian Intelligentsia resist the governance of Fascism and the Hindutva Agenda.Welcome!Very Welcome!


Three eminent writers from Punjab return


Sahitya Akademi awards!Thanks Uday


Prakash for his initiative!


Bengal,Maharashtra and Karnataka chose silence as the conscience of Gujarat is quite aloud!

Palash Biswas

https://youtu.be/_iuLfQn2MxA



Latest News Update by Indian Express:

Decision 2015

LIVE: 1.39 crore to cast their vote in first phase of Bihar elections

LIVE: 1.39 crore to cast their vote in first phase of Bihar elections

Bihar assembly election gets under way in 49 constituencies, comprising 1.35 crore of the 6.68 crore voters who will vote in the five-step exercise ending November 5.

This Beef Ban is an Arabian Spring in India,I wrote last day.This Arabian Spring is the cent percent Hinduytva agenda,the # Beef Gate!

The ruling hegemony of Rainbow Caste Alliance of governance of Fascism is adamant to win Bihar as they won Kashmir and it has set the geopolitics across the border,the humanity and Nature on Fire!It is the #BEEF GATE!I warned you earlier!Skip BEEF GATE! Please see the video once again!


ET reports:RESIGNATIONS AT SAHITYA AKADEMY

have quit or returned their awards in protest against Kalburgi murder & Dadri lynching!


# Beef Gate!Breaking his silence over the unprecedented number of resignations streaming into the Sahitya Akademy following the Dadribeef killing,Culture MinisterMahesh Shrmatold ET tht it was a `fair choice' if an individualliterateur or poet chose to resign`due to their ideology.'


Unfzed Culture Minister is also the local MP from Dadri.


Akademy President,Mr VP Tiwari has condemned the killings at last and he is now urging the writers to protect the dignity of the institution.Earlier he was speaking autonomy of the institution!


My friends in Delhi told me last night that Mr.Tiwari belongs to the Leftist camp and the Left would not speak a word against Akademy.Have I to believe this?

I am told by friends that Hindi writers and poets could not follow Uday Prakash as they are against Uday and Vajpayee! Would they not to oppose the killings,attacks on humanity just because of this DISLIKE? What is your politics partner?



I was born and brought up in Basantipur, a refugee colony in Himalayan Terai in Uttarakhand with Bengali as well as Sikh families .Weshared the holocaust and I belong to every Sikh Punjabi family as to every refugee adivasi tamil family subjected to displacement.


I am proud that Three eminent writers from Punjab return Sahitya Akademi awards!


Three eminent writers from Punjab, Gurbachan Bhullar, Ajmer Singh Aulakh and Atamjit Singh, on Sunday announced that they were returning their Sahitya Akademi awards, joining the growing protest by litterateurs against "rising intolerance" and the "communal atmosphere".

Gujarat-based writer Ganesh Devy and five other eminent writers on Sunday decided to return their Sahitya Akademi awards while Kannada writer Aravind Malagatti resigned from the body's general council, joining the growing protest by litterateurs over "rising intolerance" and "communal" atmosphere.


Devy, who hails from Vadodara, said he was returning the award to express solidarity with Nayantara Sahgal, Ashok Vajpeyi and others who have given up their awards to condemn the "shrinking space for free expression and growing intolerance towards differences of opinion" in the country.


Indian Express reports:There are times in history when you have to stand up and be counted. This is one of them: Nayantara Sahgal

Nayantara Sahgal says she sees no distinction between the RSS and the BJP, believes the Congress is still capable of "reinventing itself" and describes herself as a "socialist" and an "optimist"

Last week, Nayantara Sahgal, renowned writer and niece of Jawaharlal Nehru, returned the Sahitya Akademi award she had won in 1986 for her political novel Rich Like Us. In an open letter, she said she was returning the award in memory of the Indians who have been killed.


G N Devy,Aman Sethi returns Sahitya Akademi Awards

Full text of their letters to the president of the literary institution explaining their decisions to return the national honour.

It is with utmost regret that I convey to you that I wish to return the 1993 Sahitya Akademi  Award given in the category of books in English to my  work After Amnesia(1992). I do this as an expression of my solidarity with several eminent writers who have recently returned their awards to highlight their concern and anxiety over the shrinking space for free expression and growing intolerance towards difference of opinion.

These eminent writers have already stated their concerns in statements sent to you as well as through media interviews and discussions. I need not, therefore, state again what has already been conveyed to you. However, I would like to add that I visited Dharwad in the first week of August, just three weeks before the shocking attack on the late Dr MM Kalburgi which resulted in his death. I was there to deliver the First VK Gokak Memorial Lecture.

You may recall that the high office that you hold at present, on behalf of the literary community of our country, was at one time held, among many other mighty predecessors, by VK Gokak. He was the Principal of Willingdon College during the years of the Independence movement. On one occasion, when the police came to arrest students, he stood at the entrance of the college, blocked their entry and asked them to first arrest him before they touched the students. It was this kind of concern for freedom that he brought to the institutions he headed. I hope you do not think that he was not sufficiently pragmatic.

When I gave the Gokak lecture, Dr Kalburgi was still alive. Alas, he had to fall to the forces of intolerance. A week after his killing, I participated in a Seminar organised by the Sahitya Akademi. This was in Nagpur. I was to preside over the Inaugural Session. I was quite dismayed to see that the seminar began without a word of reference to the recent attack on a scholar honoured by the Akademi. Therefore, when my turn to speak came at the end of the session, I asked the audience if they would object to my observing a two-minute silence to mourn the dastardly killing. Please note that all of them stood up in silence with me. If our writers and literary scholars had the courage to stand up in Nagpur, I fail to understand why there should be such a deafening silence at Ravindra Bhavan about what is happening to free expression in our country.

I have personally known both of you as my seniors, and have admired your writings and imaginative powers. May I make bold to say that your moment of reckoning has come? I hope you will give this country the assurance that it is the writers and thinkers who have come forward to rescue sense, good-will, values, tolerance and mutual respect in all past ages. Had this not been so, why would we be remembering the great saint poets who made our modern Indian languages what they are today?   The great idea of India is based on a profound tolerance for diversity and difference.  They far surpass everything else in importance. That we have come to a stage when the honourable Rastrapatiji had to remind the nation that these must be seen as non-negotiable foundations of India, should be enough of a reason for the Sahitya Akademi to act.  – GN Devy

Aman Sethi's letter

In 2012, I was awarded the Sahitya Akademi Yuva Puraskar, an award given by the Akademi for writers under the age of 35. At the time, I was conflicted about accepting the award as I wondered if I should accept an award conferred by the state.

I chose to accept the award as I believed the Akademi's official charter that states that the institution is an autonomous, publicly funded body registered as a society under the Societies Registration Act of 1980. Thus, the Akademi, to use an analogy, is an autonomous institution much the same way that public universities are autonomous – they are state-funded, i.e. they are run on public money, but are not government run. The Akademi award is thus a state honour, not a "government" honour – and this is an important distinction.

We, as citizens, have as much a claim on the Sahitya Akademi as any government of the day. Accepting the award, I thought at the time, would be a way of asserting our claim on this space of collective articulation, and acknowledging the efforts of the Akademi's members in carving out an autonomous space for arts and letters in India.

Today, I would like to return my award and have sent an email to the institution, informing them of my decision. While I believe the arguments I have listed above are still valid, recent events suggest that the Akademi is neither interested in supporting writers in their fight to push the boundaries of expression and thought, nor in asserting its autonomy at a time when the spirit of critical inquiry is clearly under threat.

I am shocked by the Akademi's refusal to take a firm stance on the assassination of scholar, rationalist and Sahitya Akademi Award winner M.M. Kalburgi (a condolence meeting is not the same as a statement of solidarity) and its silence in the face of attacks on writers like U.R. Ananthamurthy, and Perumal Murugan in the past. This appears to be in line with what Akademi President Vishwanath Prasad Tiwari calls the institution's "tradition" of staying silent on "political controversies".

The Akademi cannot simultaneously draw its legitimacy of purpose and existence by celebrating writers like Kaliburgi, while shying clear of standing in solidarity when they are targeted. Here, the idea of a workers union offers a useful analogy in that a union is relevant only for as along it is autonomous and serves its members. When a union becomes a tool for management – as many unions eventually become – workers break away and form their own associations that may, or may not, choose the union form.

In this instance, I think, a number of writers (some of whom have written books I admire) feel that the Akademi has failed in its primary purpose of supporting authors. While I may or may not agree with all the views and politics of all those who have returned their awards, I stand with them on this specific issue.

Institutions like the Sahitya Akademi need writers, authors, and journalists much more than we need them. We are fortunate that our primary loyalties reside with our readers. It is to our readers that we are answerable, not to institutions of state.

For the reasons above, I am returning my award. – Aman Sethi

Letter input Courtesy : scroll.in

-- http://www.sarkarimirror.com/g-n-devyaman-sethi-returns-sahitya-akademi-awards/

Indian Intelligentsia resist the governance of Fascism and the Hindutva Agenda.Welcome!Very Welcome!


Three eminent writers from Punjab return


Sahitya Akademi awards!Thanks Uday


Prakash for his initiative!

http://letmespeakhuman.blogspot.in/2015/10/indian-intelligentsia-resist-governance.html



Open letter from Maharashtra Sahitya Academy winner to fellow writers



Urdu novelist and Maharashtra State Sahitya Academy Award winner 2011

Friends and fellow writers,

The social and political scenario of our beloved country is worsening with every passing day. Right wing forces have polarized nation in the name of religion, caste and ethnicity for political gains.  Dissent is systematically crushed and rational thinkers and writers are threatened and brutally killed in broad daylight.  The central and state governments don't show any eagerness to hold and punish murderers of Narendra Dabholkar, Comrade Govind Pansare and Prof Kalburgi. The State is seemingly hesitant and hiding behind various excuses from banning organizations, which had reportedly played clandestine role in heinous crimes.

Against this rampant violence, intolerance and anarchy Hindi writerUday Prakash, English novelist Nayantara Sahgal, Hindi poet Ashok Vajpeyi have returned Sahitya Academy Awards. Nayantara Sahgal had said yesterday that returning award was a protest against 'vicious assault' on Indian's diversity, whereas Ashok Vajpeyi had reacted that 'It is high time that writers take a stand.' Vajpeyi had further said that Sahitya Academy had failed to rise to the occasion and respect its autonomy.

Moreover, on the 4 October six Kannada writers had returned literary awards in protest over delay in the inquiry into murder of Prof Kalburgi. The Kannada writers, Veeranna Madiwalar, T. Satish Javare Gowda, Sangamesh Menasinakai, Hanumanth Haligeri, Shridevi V Aloor and Chidanand Sali were conferred state Sahitya Academy Awards in the year 2011. These authors had returned awards to put pressure on the state govt to hasten the probe and nab the culprits behind the murder of Prof Kalburgi.

This is high time, as said by Ashok Vajpeyi, and we cannot remain voiceless. Hence, I request senior Urdu writers, poets and critics including Nida Fazli, Salam Bin Razzak, Abdus Samad, Javid Akhtar, Gulzar, Munawwar Rana, to register protest against murder and killing of creative writers by returning Sahitya Academy Awards. This might be a small step but in such volatile times, it is inescapable. It is our duty to raise voice against fascism, right wing intolerant forces and lawlessness which was promoted as a strategy to divide country on the lines of religion, sentiments of segments and dogmatic cultural doctrines.

I am an ordinary person. However, in the year 2013, I was awarded by State Sahitya Academy on my third novel 'Khuda Ke Saaye Mein Ankho Micholi' (Hide and Seek in the Shadow of God), hereby I announce that I am going to return this award to the state. I demand that the state punish forces who had killed Narendra Dabholkar and Comrade Pansare. I demand central govt to hold forces responsible who had instigated mob who killed Mr Akhlaq in Dadri. I urge senior Urdu writers to take a stand as this is high time and our secular democracy is under attack.

My friends and fellow writers, history will judge you for your stances taken at such high times. Don't disappoint me.

Rahman Abbas

rahmanabbas@gmail.com

No, This Land And Country Is Not Ours Anymore: An Open Letter From An Indian Student

By Aslah Vadakara

11 October, 2015

Countercurrents.org

Cartoon by Sunil Nambu

Much love everyone.

"If I find the constitution being misused, I shall be the first to burn it."

– B.R. Ambedkar (Father of Indian constitution)

I am Aslah, 21 years old, a post-graduate student in history. I have few things to tell this world.

During our school days, we had history to study learn. World's largest country Russia, smallest country Vatican, most populated country China - all these we had by hearted then.

Also when asked about the largest democracy in the world, we would enthusiastically write India.

During school assemblies, the National anthem was being sung, not just did we keep quiet but also smacked the nearby friend on the head when he created nuisance. Watching police and army in cinemas gave us Goosebumps. In my school days, I have always dreamed with open eyes of becoming a collector and serving my India.

However, I have something different to tell all of you. This is someone else's country now. Not ours. Yes. That's what the people who rule us say. That's what we have experienced.

This is a student who has lived in India for 21 years telling the world, "This country is not mine.". I don't intend to open bundles of history. Just a few incidents that took place within the last week.

A 50 year old man was beaten to death by a mob in a place called Dadri, near to the country's capital. His son was brutally attacked. Why was Muhammad Akhlaq beaten to death? Because he was a Muslim and a rumor mill started that he had consumed beef. Who had killed him? Followers of the Hindu powers ruling India. Yes, He stored mutton in his refrigerator and it was rumored that what was stored was beef, and he was killed because he was a Muslim and he purposely ate 'beef'.

Oh, and then what did this country's government do? They sent the meat to forensic laboratory to confirm what it actually was and even the ministers justified the murder. The Prime Minister seems busy and has nothing to say.

The ruling party's ideological brains continue to convey in their stages and pages that anyone consuming beef would have the same fate.

The second day after this cruel incident, a 90 year old man was burned to death in Uttar Pradesh an Indian state. Burned to death alive. You must have heard of temples in India. He was a Dalit and he tried entering a temple. As he was considered to be lower caste, he entering the temple would only make it impure; they burned him alive on the entrance.

Again, the second day after this incident, in the same state, a Dalit family was seen being stripped naked on the public road by the police. Because, according to Hindu Varna system, they belonged to the lower caste.

Same day , a 12-year-old Dalit student was severely beaten by a teacher for touching a plate "meant for non-Dalits" during the mid-day meal at his school

All these happened in this country within 6 days. And the response of those who rule India to these, frighten humanity. Whoever responds is killed. They shot and killed M.M.Kalburgi, prominent writer and Kannada University vice chancellor, because he responded.

The other day, renowned ghazal singer from Pakistan Gulam Ali was prevented from singing in Mumbai by Shiv Sena. This was a concert to honour another renowned ghazal singer from India, Jagjit Singh, on his death anniversary.

They jail people for years without a trial using horrific laws. There exist thousands of Muslim andDalit youths in Indian jails.

Sometimes the government may directly kill. They killed Ishrat Jahan, a Muslim lady, in a fake encounter and they dealt with Afsal Guru by hanging him to death.

It is very difficult for a Muslim to own a home in the renowned city Mumbai.

This is the country where a young Dalit man was killed because his Ringtone praised Dr.B.R. Ambedkar, father of Indian constitution.

No, this land and country is not ours anymore. I don't have any security in this country being a Muslim with an Arabic name. My Dalit friend's honor has no value in this country.

Because I am a Muslim, I have no right to choose my food in this country.

The world has to know. India is no more a democracy. This country's prime minister is on a world tour praising India. You need to stand up and ask. Whether what your brother said was the truth.

The prime minister himself is the inner energy for this violence against humanity. When he was the State chief minister of Gujarat, it was his party that gave leadership to the Muslim genocide. He even compared Muslims to helpless puppies caught under wheels.

I don't know what I would have to face after writing this. But whatever it is, It doesn't matter to me. This is the truth.

By

Your brother

11-10-2015

Bihar,India

****************************************************************

Aslah Vadakara, Graduate Student in Ma.Historical Studies. Nalanda International University, Bihar, India

asla.hira@nalandauniv.com

aslahvadakara@gmail.com

Noore Aalam Siddiki is an eminent columnist in Bangladesh.He is discussing the grim  situation in Bangladesh in the light of Tagores famous poem ,HE MORE DURBHAGA DESH which remains as much as relevant as the artistic reporting of Bengal Famine by Artist Somnath Hore.Tagore died long before the conspiracies of partition and shaping in the grand Hindutva alliance but this poem warns against the cosequences.


Bangladesh situation,or the situation in any part of this geopolitics is no difference.It is all about unprecedented violence and monopolistic aggression against the masses.


Noore Aalam insists to sustain fundamental rights what we do in India because civic and human rights and even citizenship have been suspended everywhere and democracy has been reduced to farce.


Noore Aalam seems to be concerned as much as we are!I am posting this article so that our vision should extend beyond politics,economics and political border which is mandatory to sustain Humanity and Nature.


Palash Biswas


'হে মোর দুর্ভাগা দেশ


নূরে আলম সিদ্দিকী

একটি জটিল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন করে পরিপূর্ণ বিশ্রাম-শয্যায় শায়িত অবস্থায় এ নিবন্ধটি লেখার উপক্রমণিকায় আমার সুহৃদ, শুভাকাঙ্ক্ষী, শুভানুধ্যায়ী এবং দেশবাসীর কাছে 'সাফেয়া-কামেলা-আজেলা' প্রাপ্তির জন্য করুণাময় আল্লাহতায়ালার কাছে দোয়া করার বিনম্র অনুরোধ করছি। রোগশয্যা থেকে আবার বিদেশে যাওয়ার প্রচণ্ড সম্ভাবনা।

এ অসুস্থতার কারণে দীর্ঘদিন রাজনৈতিক গুমোট আবহাওয়া হৃদয়ের মর্মে মর্মে অনুধাবন করা সত্ত্বেও আমি আমার উপলব্ধি ও মননশীলতাকে তুলে ধরতে পারিনি। এ নিস্তব্ধতা গলার কাঁটার মতো আমার অনুভূতিকে কুরে কুরে খাচ্ছিল, এ দুর্ভাবনায় যে, আমি কি কাছিমের মতো মুখ লুকিয়ে নিলাম? যারা আমাকে বুকের সব অনুভূতির আবির মাখিয়ে ভালোবাসেন, তাদের বিবেকের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে আমার নির্ভয় উক্তি- না; আমি জ্ঞান থাকা পর্যন্ত দেশের মানুষ ও রাজনীতির প্রতি দায়বদ্ধতার আঙ্গিক থেকে অকুতোভয়ে হৃদয়ের অনুভূতি প্রকাশ করে যাব। আমার একজন ঐকান্তিক শুভাকাঙ্ক্ষী আমাকে জিজ্ঞেস করলেন, এ অস্থির রাজনৈতিক পরিবেশে এত দুঃসাহসী কথা বলা ও লেখার শক্তির উৎস কী? আমি তাকে বলেছি, আল্লাহর প্রতি তাকওয়া (বিশ্বাস)-এর মূল উৎস এবং তারই ধারাবাহিকতায় প্রাপ্তি প্রত্যাশাহীন মননশীলতা এবং স্বাধীনতা আন্দোলনের সঙ্গে আমার সম্পৃক্ততাই এ নির্ভীকতার কারণ। আমার এ নির্ভীক চেতনার সঙ্গে দেশি-বিদেশি কোনো শক্তির সম্পর্ক নেই।

সম্প্রতি ইতালিয়ান ও জাপানি নাগরিকের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে দেশের অভ্যন্তরে এবং আন্তর্জাতিক আঙ্গিকে নানা ধরনের গুজব ছড়ানো হচ্ছে- বাংলাদেশ আজ সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদমুক্ত দেশ নয়। বাংলাদেশ সম্পর্কে এ ভ্রান্ত ধারণার জন্য আমাদের প্রশাসনের অদূরদর্শিতা ও বিচক্ষণতার অভাবও অনেকাংশে দায়ী। প্রায়ই সন্ত্রাসী গ্রেফতারের পর যে বিপুল পরিমাণ অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধারের দৃশ্য প্রদর্শন করা হয়েছে, তাতে এ ধরনের বিরূপ প্রতিক্রিয়া হওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। শুধু তাই নয়, ওই ঘটনার পর পাশ্চাত্যের অনেক দেশ তাদের স্ব স্ব জাতীয় ক্লাবগুলোকে বন্ধ রাখতে পরামর্শ দিয়েছে এবং বাংলাদেশে অবস্থানরত তাদের নাগরিকদের উদ্দেশে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছে। এটাও উল্লেখ করা প্রাসঙ্গিক, ২০-দলীয় জোটের আন্দোলনের প্রাক্কালে গাড়ি পোড়ানো, পেট্রলবোমা ও বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় নৃশংসভাবে মানুষ হত্যা দেশে-বিদেশে এমন নেতিবাচক ধারণা সৃষ্টিতে ভূমিকা রেখেছে। পোশাকশিল্পের সঙ্গে যেসব বিদেশি ক্রেতা দীর্ঘদিন ধরে এ দেশের পোশাকশিল্পকে বাঁচিয়ে রেখেছেন, তারাও আতঙ্কিত ও উৎকণ্ঠিত। বাংলাদেশ পরিভ্রমণে তারা ভীতসন্ত্রস্ত। তাত্তি্বকভাবে যে যে বিশ্লেষণই দিক না কেন, রপ্তানিমুখী শিল্পপতিরা আজ চিত্তের উৎকণ্ঠার মধ্যে অবরুদ্ধ। সর্বোচ্চ গুরুত্ব প্রদানসাপেক্ষে এ পরিস্থিতির অবসান ঘটানো আশু প্রয়োজন। আমি স্থির প্রত্যয়ে বিশ্বাস করি, এ দেশের মানুষ জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডকে অন্তর থেকে ঘৃণা করে। পৃথিবীর সবচেয়ে সম্প্রীতিকামী জাতি হিসেবে আমরা সব সময়ই নিজেদের দাবি করতে পারি। শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে বাঙালি জাতির সম্প্রীতি ও সামাজিকতার বন্ধন এতটাই নিগূঢ় যে, পাকিস্তান আমলে চেষ্টা করেও এখানে কেউ সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বাধাতে চেয়ে সফল হতে পারেনি; আজও কেউ পারবে না। পৃথিবীর বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশ হওয়া সত্ত্বেও পাশের দেশ ভারতের বাঙালি অধ্যুষিত পশ্চিমবঙ্গ ছাড়া অন্যান্য প্রদেশে ধর্মে-ধর্মে, বর্ণে-বর্ণে অনেক সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হয়েছে।

সম্প্রতি মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে। শুধু মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষাই নয়, প্রতিটি পাবলিক পরীক্ষা থেকে শুরু করে প্রতিযোগিতামূলক সব পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস নিয়মিত ও স্বাভাবিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটা শুধু মেধা বিকাশে বাধা নয়, বরং প্রতিভাপ্রদীপ্ত, প্রাণচঞ্চল তারুণ্যের বিকাশের পথে বিরাট অন্তরায়। সংসদ, প্রশাসন, বিচারব্যবস্থা যখন অবক্ষয়ের অতলান্তে নিমজ্জিত তখন এ ঘটনাগুলো মানুষকে বর্ণনাতীত আতঙ্ক এবং অস্থিরতার মধ্যে রেখেছে।

বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার স্থপতি- এ দেশের মানুষের উদ্বেলিত চিত্তের মহামিলন তার শানিত অস্ত্র এবং বাঙালি জাতীয় চেতনায় উজ্জীবিত ছাত্রলীগ তার নিখুঁত কারিগর। বঙ্গবন্ধুর চেতনার আদর্শ, মন ও মননশীলতার শুধু উত্তরাধিকার নয়, স্বাধীনতা অর্জনে দিগন্তবিস্তৃত সাফল্যের দাবিদার ছাত্রলীগ। মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানরা শুধু আমাদের প্রচণ্ড অহংকার নয়, তাদের অবিস্মরণীয় আত্দত্যাগে, বুকনিঃসৃত রক্তে, সতীত্ব হারানোর নির্মম, নিষ্ঠুর যন্ত্রণার মধ্য দিয়ে পরাধীনতার বক্ষ বিদীর্ণ হয়। সম্মাননা, স্বীকৃতি তাদের ন্যায্য পাওনা। তাদের যে কোনো ধরনের ভাতা, বিনামূল্যে চিকিৎসা, এমনকি তাদের সন্তানদের পুরো শিক্ষাজীবনকে বিনামূল্যে বহন করা রাষ্ট্রের নৈতিক দায়িত্ব বলে আমি মনে করি। কিন্তু যে কোনো ধরনের পরীক্ষার ক্ষেত্রে বিন্দুমাত্র নমনীয়তা বা আপসকামিতা বাঞ্ছনীয় নয়।

ক্ষমতাসীন নেত্রী জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগদানের আগে ব্রিটিশ দৈনিক গার্ডিয়ানকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে যে উক্তিটি (মৌলিক অধিকার নয়, উন্নয়নই আমার লক্ষ্য) করেছেন, এটি সন্দেহাতীতভাবে একটি স্বৈরাচারী মানসিকতার বহিঃপ্রকাশ। এমনিতেই কী সংসদ, কী প্রশাসন, কী বিচারিক ব্যবস্থা- আজ মূল্যবোধের অবক্ষয়ের অতলান্তে। রাষ্ট্রের সব প্রতিষ্ঠানের শৃঙ্খলা শূন্যের কোঠায় এসে দাঁড়িয়েছে। দুর্নীতি একটি স্বাভাবিক কর্মকাণ্ডের রূপ নিয়েছে। দুর্নীতিবাজরা আজ বুক চিতিয়ে রাষ্ট্রের সর্বেসর্বা এবং তারা দর্পভরে সমাজে ছড়ি ঘোরাচ্ছে। মনে হয় তারাই যেন রাষ্ট্রের মূল কর্ণধার। আমি বহু আগে থেকে বার বার একটি কথা বলে চলেছি- বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে শেয়ারবাজার, হলমার্ক, ডেসটিনি, যুবক, বেসিক ব্যাংকের দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতদের জরুরি ভিত্তিতে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করুন। মায়ের গর্ভের শিশুও যখন বুলেটবিদ্ধ হয়, ছেলের সামনে মাকে সম্পূর্ণ উলঙ্গ করে ধর্ষণ করা হলে, এমনকি প্রকাশ্য দিবালোকে ধর্ষণের মর্মান্তিক দৃশ্য অবলোকন করেও যখন মানুষ প্রতিহত করতে এগিয়ে আসে না, তখন মানুষের হৃদয়ের দৈন্যদশা, হতাশার বিবর্ণ চিত্রটি প্রকট হয়ে দেখা দেয়।

আমি প্রত্যয়দৃপ্ত চিত্তে বলতে পারি, জীবনে অনেক অগি্নপরীক্ষায় প্রমাণ করেছি, আমার চিত্ত কেবল নির্লোভই নয়, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মননশীলতার প্রশ্নে আমি সব প্রাপ্তি-প্রত্যাশা, ভয়ভীতি, ও নির্যাতন-নিগ্রহের পরোয়া করিনি, করব না। দেশের অভ্যন্তরে এমনকি জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে ব্যতিক্রমহীনভাবে শেখ হাসিনা তার পিতা-মাতাসহ স্বজন হারানোর বেদনাপ্লুুত চিত্তে, অশ্রুসিক্ত নয়নে উদ্ধৃতি প্রদান করেন, একমাত্র বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরসূরি হিসেবেই তিনি বাংলার মানুষের কাছ থেকে অনেক কিছু পেয়েছেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধু তো শুধু তার একার পিতা নন, সমগ্র জাতির পিতা। এটি শুধু তার একার নয়, সমগ্র জাতির শোক।

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগদানের জন্য সরকারিভাবে ২২৭ জনের বিশাল ও ব্যয়বহুল অভিযাত্রায় রাষ্ট্রের যে বিপুল অর্থের অপচয় হলো তা শুধু সাধারণ মানুষকে ব্যথিতই করেনি, বিস্ময়াভিভূতও করেছে।

বেগম খালেদা জিয়া রাজনীতিতে আজ নীরব, নিস্তব্ধ, নিঃস্পৃহ ও বিকলাঙ্গ। নিজ সন্তান-সন্ততির সঙ্গে ঈদ উদ্যাপন করার অধিকার তিনি রাখেন। কিন্তু বিশাল মার্সিডিজে যেভাবে তারেক জিয়া গাড়ি চালিয়ে তাকে নিয়ে গেলেন, তাতে লন্ডনপ্রবাসীরা কতটুকু সংগঠিত হয়েছেন জানি না, কিন্তু বাংলাদেশে তার দলের নেতা থেকে শুরু করে সাধারণ কর্মীদের প্রকাশ্য জিজ্ঞাসা- বেগম খালেদা জিয়া ও তার ছেলে, স্বজনরা ঐশ্বর্য, প্রাচুর্য ও বিলাসিতার উত্তাল তরঙ্গে গা ভাসাবেন আর সাধারণ কর্মীরা রাস্তায় প্রতিরোধ গড়বেন, গুলি খাবেন কোন যুক্তিতে? শুধু দুই জোটের প্রধান নেত্রীই নন, রাজনীতির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার বিলাসবহুল ঐশ্বর্য ও প্রাচুর্যের উচ্ছ্বসিত ঊর্মিমালায় গা ভাসিয়ে দেওয়া- এ বল্গাহীন জীবন, মানুষের মনে আজ বদ্ধমূল ধারণার সৃষ্টি করেছে যে, রাজনীতি আজ পুঁজিবিহীন, ঝুঁকিবিমুক্ত, রাতারাতি শত শত কোটি টাকার মালিকানা লাভের একমাত্র নিমিত্ত।

দুই জোটের দুই নেত্রীর উদ্দেশে বলি, উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত ক্ষমতা অনেক দিন তো ভোগ করলেন, এখন জাতির প্রতি ঔদার্য ও আত্দত্যাগের মহান দৃষ্টান্ত স্থাপন করে এ দুর্ভাগা দেশটির শেষ রক্ষার জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করুন। দুই নেত্রীর স্বতঃপ্রণোদিত ঘোষণা হোক- আমরা ক্ষমতার রাজনীতি থেকে অবসর নেব। মহাত্মা গান্ধী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, শেরেবাংলা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উদ্ভাসিত হব। মুক্তিযুদ্ধকালীন বাঙালি জাতীয় চেতনার প্রত্যয়দৃপ্ত ঐক্যের বন্ধনে সমগ্র জাতিকে উজ্জীবিত করে সামনের দিকে এগিয়ে যাব। কোনো নেত্রী, জোট বা দল নয়; দেশের মানুষ আপামর জাগ্রত জনতা। তাদের হৃদয়ের স্পন্দনকে উপেক্ষা করে এ থমথমে স্থবির অনিশ্চিত পরিবেশ দীর্ঘায়িত করলে যে ঝড় উঠবে, তার থেকে পরিত্রাণ তারাও পাবেন না।

অন্যদিকে জাতীয় পার্টিকে গৃহপালিত বিরোধী দল বললেও কম বলা হবে। প্রতি মুহূর্তেই জেনারেল এরশাদের ভিন্ন ভিন্ন বক্তব্য দলটিকে শুধু হাস্যস্পদই নয়, ক্রমাগত বিলুপ্তির দিকে টেনে নিচ্ছে।

আজকের উন্মুক্ত বিশ্বের অর্থনৈতিক প্রতিযোগিতায় ক্ষমতাসীনদের বুঝতে হবে, বৈদেশিক অর্থ তো বটেই, এমনকি দেশীয় পুঁজির লগি্নর জন্যও মৌলিক অধিকারসহ রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা একান্ত প্রয়োজন। ক্ষমতাসীন জোটের অদূরদর্শিতার কারণে বাংলাদেশের সঙ্গে আমেরিকাসহ পাশ্চাত্যের দেশগুলোর সম্পর্ক ক্রমেই শীতল হচ্ছে। এটা সব অবস্থাতেই অনভিপ্রেত। ভিয়েতনাম আজ আমেরিকার অর্থে একটি উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে। অথচ তারা সশস্ত্র যুদ্ধে লিপ্ত ছিল দীর্ঘ ১৭ বছর। তার নিষ্পত্তিও হয়েছে যুদ্ধক্ষেত্রে নয়, আলোচনার টেবিলে। কিউবা আজ অর্ধশতাব্দীরও বেশি সময় পর আমেরিকার সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে। বারাক ওবামা, পুতিন, ক্যামেরন, অ্যাঙ্গেলা মার্কেল- আন্তর্জাতিক অনেক বিষয়েই আজকে প্রায় অভিন্ন সুরে কথা বলছেন। কিন্তু পাশ্চাত্যের সঙ্গে বাংলাদেশের এমন কী অজানা সমস্যা যে, সম্পর্ক ক্রমেই অবনতির দিকে যাচ্ছে!

পাশের দেশ ভারত আমেরিকা তো বটেই, চিরবৈরী পাকিস্তান ও চীনের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে অক্লান্ত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু দুর্ভাগ্য এ দেশের, দুর্ভাগ্য স্বাধীনতার যে, শুধু ক্ষমতা দখলের প্রতিযোগিতায় প্রতিহিংসাপরায়ণতা এমন পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে যে, তারা বল্গাহীনভাবে পরস্পরের বিরুদ্ধে কথা বলতে গিয়ে দেশের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতেও কুণ্ঠাবোধ করছেন না। শুধু এ উপমহাদেশেই নয়, সারা বিশ্বে এটি একটি অস্বাভাবিক ঘটনা। পৃথিবীর সব গণতান্ত্রিক দেশেই ক্ষমতা দখলের লড়াই আছে, দলমতের ভিন্নতা আছে, নির্দিষ্ট সময় পরে সরকারের পরিবর্তন ঘটে। কিন্তু দেশের পররাষ্ট্রনীতির কোনো ব্যত্যয় ঘটে না এবং আইনের দৃষ্টিতে সব নাগরিক সমান।

রোগশয্যায় থেকে রাজনীতির সব জোট ও দলের প্রতি আমার বিনম্র আহ্বান- ব্যক্তিবন্দনা, অর্চনা, স্তুতি ও স্তাবকতা বন্ধ করে দুর্নীতির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হোন। চূড়ান্ত অবক্ষয়ের হাত থেকে দেশটাকে বাঁচান। প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো সর্বনাশা ব্যাধি থেকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষা করুন।

আমার এ নিবন্ধের উপসংহার হলো এই- বাংলাদেশ এতই দুর্ভাগা যে, আমরা সহজ কথাটাকে আত্দম্ভরিতার আঙ্গিকে ভিন্ন দৃষ্টিতে দেখি। মৌলিক অধিকারবিবর্জিত উন্নয়ন দুর্নীতি, দুর্বিচারের সীমানা বিস্তৃত করে। আজকে সরকার ও বিরোধী জোটের যাদের জীবনের একমাত্র লক্ষ্য ক্ষমতা; এবং যারা আজকে ঐশ্বর্য, বৈভব, প্রতিপত্তির গড্ডলিকা প্রবাহে গা ভাসিয়ে দিয়েছেন, তাদের উদ্দেশে আমি স্মরণ করাতে চাই বিশ্বজয়ী মহাবীর আলেকজান্ডারের জীবনের অন্তিমলগ্নে দিয়ে যাওয়া শিক্ষাটি (তিনি মহান দার্শনিক অ্যারিস্টটলের ছাত্র ছিলেন)। মাত্র ২০ বছর বয়সে গ্রিসের সিংহাসনে আরোহণ করা আলেকজান্ডার খ্রিস্টপূর্ব ৩২৩ সালে মাত্র ৩৩ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুশয্যায় শায়িত অবস্থায় তিনি তার সেনাপতিদের ডেকে অন্তিম অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছিলেন, আমার কফিন বহনের সময় আমার দুই হাত কফিনের বাইরে ঝুলিয়ে রেখ। সেনাপতিরা তার এ অভিপ্রায়ের কারণ জানতে চাইলে তিনি মৃদু হেসে বলেছিলেন, এর মধ্য দিয়ে আমি পৃথিবীর মানুষকে জানাতে চাই যে আমি খালি হাতে পৃথিবীতে এসেছিলাম, আবার খালি হাতেই পৃথিবী থেকে বিদায় নিচ্ছি।

লেখক : স্বাধীন বাংলা ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের অন্যতম নেতা

- See more at: 'হে মোর দুর্ভাগা দেশ' | Bangladesh Pratidin



image






'হে মোর দুর্ভাগা দেশ' | Bangladesh Pratidin

একটি জটিল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন করে পরিপূর্ণ বিশ্রাম-শয্যায় শায়িত অবস্থায় এ নিবন্ধটি লেখার উপক্রমণিকায় আমার সুহৃদ, শুভাকাঙ্ক্ষী, শুভানুধ্যায়ী এবং দেশবাসীর কাছে


View on www.bd-pratidin.com

Preview by Yahoo



अरब का वसंत भारत में गोरक्षा आंदोलन बन गया है,फिर बंटवारे का सबब!

कब तक हम अंध राष्ट्रवाद, अस्मिता अंधकार और जाति युद्ध में अपना ही वध देखने को अभिशप्त हैं?

पलाश विश्वास

https://youtu.be/AMxrTv0zJ88



--
Pl see my blogs;


Feel free -- and I request you -- to forward this newsletter to your lists and friends!

No comments:

Related Posts Plugin for WordPress, Blogger...